Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    নুসরাত হত্যার ঘটনায় অন্যতম আসামি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিন আটক || কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবীতে রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে উত্তর স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ মিছিল || খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তি নিয়ে সরকারপন্থি কয়েকটি মিডিয়া প্রতিদিন মনগড়া প্রোপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে:রিজভী আহম্মেদ || সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত ৬ জন শপথ নেবে না:বিএনপি || খালেদা জিয়ার জামিনে সরকারের কোন হস্তক্ষেপ নেই,বিচার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ স্বাধীন:মন্ত্রী আনিসুল হক || ‘খালেদা জিয়া-তৃতীয় বিশ্বের কণ্ঠস্বর’ শীর্ষক বইটির মোড়ক উন্মোচন || নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের দায়িত্বে অবহেলার প্রমাণ মিলেছে:পুলিশ সদর দফতর || গণতন্ত্রে অবিশ্বাসীরাই ভোটের উৎসবকে কলুষিত করতে চায় || ২০৬ মামলার আসামি মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবীব-উন নবী খান সোহেলের মুক্তি কতদূর? || খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে রিজভীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল ||

    অন্য গ্রামের ছেলের সঙ্গে প্রেম করায় জোরপূর্বক তুলে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ

    March 17, 2019

    pnbd24:-প্রেমিক-প্রেমিকা বাড়ি থেকে তিন কিলোমিটার দূরে একটি খেলার মাঠে বসে গল্প করছিল। এসময়  মেয়েটির পরিচিত পাঁচ বন্ধু মিলে তিনটি মোটরসাইকেল নিয়ে ওদের জোরপূর্বক তুলে নিয়ে উপজেলার বহেড়াতৈল রেঞ্জের আওতাধীন কাকড়াজান বিটের একটি গহিন বনে নিয়ে যায়।

    বনের ভিতরে প্রেমিক-প্রেমিকাকে বিবস্ত্র করে চড়-থাপ্পড় মারে নরপশুরা। একে অপরকে জড়িয়ে ধরতে বলে। না ধরায় আবারও চড়-থাপ্পড় মারে। এক পর্যায়ে ওরা ওদেরকে শারীরিক সম্পর্ক করতে চাপ দেয়। শারীরিক সম্পর্কে অস্বীকৃতি জানালে এক পর্যায়ে সাদ্দাম হোসেন, মো. জালাল ও আশরাফুল ইসলাম মেয়েটিকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। নজরুল ইসলাম ও আফাজ উদ্দিন এসব ঘটনার ভিডিও ধারণ করে।

    ঘটনাটি ঘটেছে গত ১১ই মার্চ টাঙ্গাইলের সখীপুরের বহেড়াতৈল ইউনিয়নের একটি বনে। বিষয়টি জানাজানি হলে গ্রাম্য সালিশে সমাধানের চেষ্টা চলে। এক পর্যায়ে সুবিচার না পেয়ে গত শনিবার রাতে মেয়েটি বাবা বাদী হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে সখীপুর থানায় ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা করেন। সখীপুর থানার পুলিশ গতকাল সকালে দুই নম্বর আসামি জালালকে (২৫) গ্রেপ্তার করে।

    পুলিশ জালালের কাছ থেকে ধর্ষণের ও প্রেমিক-প্রেমিকাকে বিবস্ত্র করার ভিডিও উদ্ধার করে। বাকি আসামিদের কাছে আরও ভিডিও রয়েছে বলে পুলিশের কাছ থেকে জানা যায়। গ্রেপ্তার হওয়া জালাল থানার হাজতে থেকে জানায়, মেয়েটি আমাদের পাড়ার। সে মাঝে মধ্যেই ওই ছেলেকে নিয়ে মাঠে বসে গল্প করে।

    আমাদের সঙ্গে প্রেম না করে অন্য গ্রামের ছেলের সঙ্গে প্রেম করায় হিংসাত্মকভাবে তাঁদের জোর করে তুলে নেয়া হয়। মেয়েটির বাবা জানায়, আমার কপাল খারাপ। মেয়েটি ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় একবার ধর্ষণের শিকার হয়েছিল। বছর দুয়েক আগের ঘটনা। সখীপুর থানায় মামলাও হয়েছিল। এরপর থেকে থানা ও আদালতে ঘুরতে গিয়ে ও লোক লজ্জার ভয়ে আর স্কুলে পড়া হয়নি মেয়েটির। আবার মামলায় যেতে হলো।

    আগের মামলায় মেয়ে বাদী ছিল। এবার আমাকেই বাদী হতে হয়েছে। এ ন্যক্কারজনক ঘটনায় জড়িত পশুদের বিচার দাবি করছি। সখীপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) লুৎফুল কবির বলেন, বাকি আসামিদের ধরার চেষ্টা চলছে। মেয়েটিকে রোববার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

    Print Friendly, PDF & Email
    • 2
      Shares