Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    এমপি পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট আবেদন সরাসরি খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট || ফকিরাপুলে ডাস্টবিন থেকে ‘মেইড ইন পাকিস্তান’ লেখা ৫৫ রাউন্ড গুলি ও একটি গ্রেনেড উদ্ধার || দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত ডাকসু নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম না কেনার সিদ্ধান্ত ছাত্রদলের || সংরক্ষিত নারী আসনের ৪৯ সংসদ সদস্যের প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে নির্বাচন কমিশন || ঠাকুরগাঁওয়ের ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত : বিজিবি মহাপরিচালক ||  আগামী উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না: রুহুল কবির রিজভী || ভারত ও বাংলাদেশের সম্পর্কক‘স্বামী-স্ত্রীর মতো’ :ররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন || বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এর অভিনন্দন বার্তা || বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর বিবৃতি || হবিগঞ্জে বিএনপি নেতা জিকে গউছসহ ১৪ জন জেলে ||

    সংসদ সচিবালয় উদ্যোগ নিয়েছে সব স্পিকারের দেয়া রুলিং একত্রিত করতে

    November 16, 2014

    pnbd24:-অবশেষে ঠিকানা পেতে যাচ্ছে স্পিকারের রুলিং। সংসদ সচিবালয় উদ্যোগ নিয়েছে সব স্পিকারের দেয়া রুলিং একত্রিত করতে। সংসদ অধিবেশন পরিচালনায় স্পিকারের নিরঙ্কুুশ ক্ষমতার অন্যতম রুলিং। স্পিকারের এ ক্ষমতা ক্ষণিকের জন্য প্রয়োগ থাকলেও  দীর্ঘমেয়াদে নেই বাস্তবায়ন। ক্ষেত্রবিশেষে এক স্পিকারের রুলিং সম্পর্কে অন্য স্পিকারের কোন ধারণাও থাকে না। এ কারণে একই বিষয়ে একাধিকবার রুলিং দেয়ার উদাহরণ রয়েছে ভূরি ভূরি। এ নিয়ে মানবজমিন-এ ‘অজানা ঠিকানায় স্পিকারের রুলিং’ শিরোনামে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন ছাপা হয়। এরই প্রেক্ষিতে আইপিডি প্রকল্পের আওতায় ‘বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ স্পিকারের রুলিং (১৯৭৩-২০০৯)’ খসড়া চূড়ান্ত করতে ৭ সদস্যের একটি এডিটোরিয়াল রিভিউ কমিটি গঠন করা হয়েছে। ২৮শে অক্টোবর গঠিত কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে সংসদ সচিবালয়ের যুগ্ম-সচিব (আইন প্রণয়ন) হেলালউদ্দিন চৌধুরীকে। কমিটির অপর সদস্যরা হলেন-আইন অধিশাখার উপ-সচিব, পরিচালক (আইন), পরিচালক (বিতর্ক ও প্রকাশনা), সিনিয়র সহকারী সচিব শাহ মো. সিদ্দিক, সিনিয়র লেজিসলেটিভ ও ড্রাফটসম্যান অমলেন্দু সিংহ ও লেজিসলেটিভ ড্রাফটসম্যান-১ এম এম ফজলুর রহমান। কমিটিকে তিন মাসের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে কমিটির সদস্যরা ৫টি বৈঠক করেছেন। এর আগে জাতিসংঘের উন্নয়ন সহযোগী ইউএনডিপি’র সহায়তায় স্পিকারের রুলিং নিয়ে একটি বই বের হলেও সামান্য তথ্যগত ত্রুটির কারণে তা পুড়িয়ে ফেলা হয়। এ নিয়ে অনুসন্ধানে দেখা গেছে, স্বাধীনতার পর গত ৪৩ বছরে ১০টি সংসদে ১২৯টি রুলিং দেন ১১ জন স্পিকার। এর মধ্যে অনেক রুলিং একাধিকবার দিয়েছেন স্পিকাররা। আগের স্পিকারের দেয়া রুলিং পরের স্পিকারও দিয়েছেন-এমন উদাহরণও রয়েছে। সংসদ লাইব্রেরিতে সংরক্ষিত থাকা ১ম সংসদ থেকে শুরু করে দশম জাতীয় সংসদের বৈঠকের কার্যবিবরণী থেকে এ তথ্য পাওয়া যায়। ১৯৭২ সালের ১ম জাতীয় সংসদের তিনটি অধিবেশনে ৬টি রুলিং দেন স্পিকার মোহাম্মদউল্লাহ ও আবদুল মালেক উকিল। দ্বিতীয় সংসদের ৬টি অধিবেশনে ১৫টি রুলিং দেন স্পিকার মির্জা গোলাম হাফিজ। তৃতীয় সংসদে স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে শামসুল হুদা চৌধুরী দু’টি অধিবেশনে রুলিং দেন ৫টি। চতুর্থ সংসদে ১৯৯০ সালের ৩০শে জানুয়ারি ৫ম অধিবেশনে রুলিং দেয়া হয় একটি। তখন স্পিকার ছিলেন শামসুল হুদা চৌধুরী। ৫ম সংসদে ৯টি অধিবেশনে রুলিং দেয়া হয় ১৮টি। ৭ম সংসদে ১১টি অধিবেশনে স্পিকার রুলিং দেন ২২টি। সবচেয়ে বেশি রুলিং দেয়া হয় ৮ম অধিবেশনে। স্পিকার মোহাম্মদ জমিরউদ্দিন সরকার ওই সংসদে ৪৬টি রুলিং দেন। নবম সংসদে স্পিকার হিসেবে দায়িত্বপালনকালে আবদুল হামিদ এডভোকেট ১৫টি রুলিং দেন। পরে তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পান ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী। দশম সংসদেও স্পিকার নির্বাচিত হন তিনি। তবে এখন পর্যন্ত কোন রুলিং দেননি তিনি।

    Print Friendly, PDF & Email