Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    কুয়েতে বেতন না পাওয়ায় আহলিয়া কোম্পানির একজন বাংলাদেশি শ্রমিকের ছাদ থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা || ৬০ জন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল || রাজপথে লড়াই ও রক্ত দেয়া ছাড়া কারাবন্ধী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব নয়:শামসুজ্জামান দুদু || আওয়ামী লীগের রন্দ্রে রন্দ্রে বাকশাল ঢুকে আছে :ড. আবদুল মঈন খান || ভিপি দায়িত্বভার নেয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছেন নুরুল হক নুর || নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডের্নকে হত্যার হুমকি || চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরর অবস্থা এখন শঙ্কামুক্ত || বিমানবন্দরে প্রবেশের অভিযোগে ৩৫ রাউন্ড গুলি ও অস্ত্র নিয়ে আওয়ামী লীগের এক নেতাকে আটক || তিন দিনের কর্মসূচি ঐক্যফ্রন্টের, প্রকাশ হবে গণশুনানির রায় || কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আলজাজিরা বাংলাদেশে ব্লক কেনো? ||

    ১৯ দফা প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছে বিএনপি

    December 19, 2018

    একাধারে পরপর দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী না থাকা,  প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ক্ষমতায় ভারসাম্য আনা, বিরোধী দল থেকে ডেপুটি স্পিকার নিয়োগ দেয়াসহ ১৯ দফা প্রতিশ্রুতি

    একাধারে পরপর দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী না থাকা,  প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ক্ষমতায় ভারসাম্য আনা, বিরোধী দল থেকে ডেপুটি স্পিকার নিয়োগ দেয়াসহ ১৯ দফা প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছে বিএনপি। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে জিতে ক্ষমতায় গেলে রাষ্ট্রে জনগণের মালিকানা সুদৃঢ় করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিএনপি ইশতেহারে বলেছে, নির্বাচনের দিনের গণতন্ত্রকে নিত্যদিনের অনুশীলনে পরিণত করা হবে।

    গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে ইশতেহার ঘোষণা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন,  নির্বাচনে জয়লাভ করে সরকার গঠন করলে ঐকমত্য, সকলের অন্তর্ভুক্তি এবং প্রতিহিংসাহীনতা এই মূলনীতির ভিত্তিতে বিএনপি রাষ্ট্র পরিচালনা করবে। ‘প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ’ সংবিধানের এই নীতির ভিত্তিতে সরকার পরিচালনায় যাবতীয় পদক্ষেপের ভিত্তি হবে রাষ্ট্রের মালিকদের মালিকানা সুদৃঢ় করা। শুধুমাত্র নির্বাচনে জেতা দলের মানুষের নয়, এই মালিকানায় সকল দল, ব্যক্তি ও মতাদর্শে অন্তর্ভুক্ত হবে।

    ইশতেহারে গণভোট পদ্ধতি পুনঃপ্রবর্তন, উচ্চকক্ষ সংসদ প্রতিষ্ঠা, বিরোধী দল থেকে  ডেপুটি স্পিকার নিয়োগ, ন্যায়পাল নিয়োগ, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, অফিসিয়াল সিক্রেট অ্যাক্ট বাতিল বিশেষ ক্ষমতা আইন ’৭৪ বাতিল, বেকার ভাতা প্রদানের প্রতিশ্রুতি রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, এমপি এবং উচ্চ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের সম্পদের হিসাব প্রতিবছর প্রকাশ করা এবং প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর চলাচলে যেন সাধারণ মানুষের  কোনো ভোগান্তি না হয় সেজন্য বিশেষ ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতিও দেয়া হয়েছে ইশতেহারে। একই সঙ্গে সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদ সংশোধন করে নিম্নআদালতের নিয়ন্ত্রণ প্রেসিডেন্টের হাত থেকে সুপ্রিম কোর্টের হাতে ন্যস্ত ও বিচার ব্যবস্থার সংস্কারের জন্য একটি জুডিশিয়াল কাউন্সিল গঠন করার কথাও রয়েছে ইশতেহারে।

    পঞ্চদশ সংশোধনীতে বাতিল হওয়া গণভোট ব্যবস্থা পুনঃপ্রবর্তন করা হবে। সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ সংশোধন করে শর্ত সাপেক্ষে সংসদ সদস্যদের স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকার নিশ্চিত করা হবে।

    প্রতিহিংসা ও প্রতিশোধের রাজনীতির বিপরীতে ভবিষ্যৎমুখী এক নতুন ধারার রাজনৈতিক সংস্কৃতির প্রতিষ্ঠা করার জন্য নতুন এক সামাজিক চুক্তিতে পৌঁছাতে একটি জাতীয় কমিশন গঠন করা হবে।

    প্রশাসনিক স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার জন্য সংবিধান অনুযায়ী ন্যায়পাল নিয়োগ দেয়া হবে।
    র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হবে। র‌্যাব’র বর্তমান কাঠামো পরিবর্তন করে অতিরিক্ত আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ান গঠন করা হবে। এই ব্যাটালিয়ন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকবে। পুলিশ বাহিনীর ঝুঁকিভাতা বাড়ানো হবে। পেশাদারিত্ব বৃদ্ধিতে পদক্ষেপ নেয়া হবে। পুলিশের জন্য কল্যাণমূলক প্রকল্প গৃহীত হবে। ইন্সপেক্টর ও সাব ইন্সপেক্টরদের বেতন ৬ মাসের মধ্যে আপগ্রেড করা হবে। পুলিশ বাহিনীর সদস্যগণ অবসরে গেলে ও তাদের রেশনিং সুবিধা  প্রদান করা হবে।

    সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদ সংশোধন করে নিম্ন আদালতের নিয়ন্ত্রণ রাষ্ট্রপতির হাত থেকে সুপ্রিম কোর্টের হাতে ন্যস্ত করা হবে। বর্তমান বিচার ব্যবস্থার সংস্কারের জন্য একটি জুডিশিয়াল কমিশন গঠন করা হবে।
    ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট, বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৯৭৪ সহ সকল প্রকার কালাকানুন বাতিল করা হবে।

    দেশরক্ষা, পুলিশ ও আনসার ব্যতিত শর্তসাপেক্ষে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে কোনো সময়সীমা থাকবে না।
    বিডিআর হত্যাকা- ও বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি সংক্রান্ত সকল অনুসন্ধান রিপোর্ট জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে। একই সঙ্গে এসবের অধিকতর তদন্তের উদ্যোগ দেয়া হবে।

    জাতীয় প্রবৃদ্ধির হার ১১ শতাংশের উন্নীত করা হবে। সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশন ও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক পরিচালনা বোর্ডে যোগ্য, সৎ, দক্ষ ব্যক্তিদের নিয়োগ দেয়া হবে।
    অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংকিং ডিভিশন বিলুপ্ত করে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকসমূহ পরিচালনা ও তদারকির ভার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হাতে ন্যস্ত করা হবে।

    দেশে কর্মরত সকল বিদেশিকে ওয়ার্ক পারমিটের আওতায় এনে মুদ্রাপাচার রোধ করা হবে।
    বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, গুম-খুন ও অমানবিক শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অবসান ঘটানো হবে।
    একবছর ব্যাপী অথবা কর্মসংস্থান না হওয়া পর্যন্ত যেটাই আগে হবে শিক্ষিত বেকারদের বেকার ভাতা প্রদান করা হবে। এদের যৌক্তিক অর্থনৈতিক উদ্যোগে আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে। ২৫ বছর পর্যন্ত তরুণদের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য ইয়ুথ পার্লামেন্ট গঠন করা হবে। ইশতেহারে বলা হয়েছে প্রথম তিনবছরে মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে দুই লাখ মানুষকে চাকরি দেয়া হবে। আর আগামী ৫ বছরে ১ কোটি নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে। তরুণ দম্পতি ও উদ্যোক্তাদের স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য ২০ বছর মেয়াদি ঋণ চালু করা হবে।

    সকল মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রের সম্মানিত নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করা হবে। মুক্তিযোদ্ধা তালিকা প্রণয়নের নামে দুর্নীতির অবসান ঘটানো হবে। মূল্যস্ফীতির নিরিখে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ভাতা বাড়ানো হবে। দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি রক্ষা ও মুক্তিযোদ্ধকালীন বধ্যভূমি ও গণকবর চিহ্নিত করে যেসব স্থানে স্মৃতি স্তম্ভ নির্মাণ করা হবে। রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে নিবিড় জরিপের ভিত্তিতে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের একটি সঠিক তালিকা প্রণয়ন করা হবে এবং তাদের যথাযথ মর্যাদা ও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়া হবে।

    একটি রেন্টাল পাওয়ার প্রজেক্টের উচ্চ ব্যয়ের কারণ তদন্ত করে দেখবে।
    দুস্থ, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা মহিলা ও অসহায় বয়স্কদের ভাতার পরিমাণ মূল্যস্ফীতির নিরিখে বৃদ্ধি করা হবে। বেসরকারি ও স্বনিয়োজিত খাতে নিয়োজিত ব্যক্তিদের জন্য বার্ধক্যের দুর্দশা লাঘবের উদ্দেশে আইন প্রণয়নের মাধ্যমে একটি পেনশন ফান্ড গঠন করা হবে। গরিব ও নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালু করা হবে।

    দল, মত, জাতি, ধর্ম, নির্বিশেষে ক্ষুদ্র বৃহৎ সকল জাতি গোষ্ঠীর সংবিধান প্রদত্ত সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও ধর্মকর্মের অধিকার এবং জীবন সম্ভ্রম  ও সম্পদের সম্পূর্ণ নিরাপত্তা বিধান করা হবে। এই লক্ষ্যে ধর্মীয় সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে। ইশতেহারে যে অংশটি সংবাদ সম্মেলনে সরবারহ করা হয় যা মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পড়েন তাতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বিষয়ে কোনো কিছু উল্লেখ ছিল না। এ বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, আমরা যা যা বলেছি এখানে। বাকিটা বিস্তারিত-এর মধ্যে পাবেন। পুরো ইশতেহার আমাদের ওয়েবসাইটে দেয়া হবে।

    ইশতেহার পাঠ করার সময় খালেদা জিয়া রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ক্ষমতায় গেলে কারো ওপরই কোনো প্রকার প্রতিশোধ নেয়া হবে না। একটি প্রতিহিংসামুক্ত এবং সহমর্মী বাংলাদেশ গড়ে তোলাই হবে বিএনপি’র লক্ষ্য। তিনি বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, বিএনপি একটি উন্নত গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চায়। দেশের উন্নয়নের জন্য বিএনপি’র কর্মসূচিগুলো বহুমুখী ও উন্নততর। নির্বাচনে জয়লাভ করে ঐক্যের সরকার গঠন করলে ঐকমত্য, সবার অন্তর্ভুক্তি এবং প্রতিহিংসাহীনতা এই মূলনীতির ভিত্তিতে বিএনপি রাষ্ট্র পরিচালনা করবে। যেখানে প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ, সংবিধানের এই নীতির ভিত্তিতে সরকার পরিচালনায় যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

    তিনি বলেন, বিগত প্রায় ১০ বছরে দেশে কোনোরকম সুশাসন ও আইনের শাসন ছিল না। মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকার সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচারকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে। মামলা-হামলা, গুম, খুন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-ের মাধ্যমে সৃষ্টি করা হয়েছে এক ভীতি ও ত্রাসের রাজত্ব। জনগণের বাক-স্বাধীনতা ও সভা-সমাবেশের স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। দেশে আঞ্চলিক ও শ্রেণি বৈষম্য ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। দারিদ্র্য হ্রাসের হার কমে গেছে। দেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হচ্ছে, ব্যাংকগুলো লুট হয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নির্দেশে আমরা জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার লক্ষ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছি। বিএনপি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছে।

    খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ধানের শীষে সবার কাছে ভোট প্রার্থনা করেন। তিনি বলেন, আজকের এই মুহূর্তে বিএনপি’র চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আমাদের সঙ্গে নেই। তাঁর অপরাধ, তিনি জীবনে অগণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থার বিরুদ্ধে লড়াই এবং বাংলাদেশের মানুষের জীবনকে সুন্দর করার জন্য নিরন্তর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। মানুষের মুক্তি, গণতান্ত্রিক অধিকার ও মানবিক অধিকার নিশ্চিত করতে গিয়ে তিনি আজ বন্দি জীবনযাপন করছেন। বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই দেশে ফিরতে পারছেন না।

    আমরা আশা করবো আপনারা খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সম্মান ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠাকল্পে আপনাদের মূল্যবান সমর্থন প্রদান করবেন। আপনাদের একটি ভোট আমাদের নেত্রীর জীবনকে পুনরায় আলোয় উদ্ভাসিত করবে। ফখরুল বলেন, এই মুহূর্তে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিএনপি নেতা, কর্মী ও সমর্থকরা নিজ ঘরে থাকতে পারছেন না। তারাও নিজ ঘরে ফিরতে চান। পেতে চান পরিবারের সান্নিধ্য, একটি স্বস্তিময় রাত। আপনাদের সমর্থন ঘরছাড়া এই মানুষগুলোকে ঘরে ফিরবার সুযোগ করে দেবে। অবসান ঘটাবে জুলুম ও নির্যাতনের বিভীষিকাময় পরিস্থিতির। ইশতেহার প্রকাশের অনুষ্ঠানে মূলমঞ্চে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

    এছাড়া অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ, অধ্যাপক আনোয়ারুল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক সদরুল আমিন, অধ্যাপক আফম ইউসুফ হায়দার, অধ্যাপক আখতার হোসেন খান, অধ্যাপক ফিরোজা হোসেন, অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী, অধ্যাপক খলিলুর রহমান, অধ্যাপক আবদুল লতিফ মাসুম, অধ্যাপক আবদুল মান্নান মিয়া, সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

    Print Friendly, PDF & Email
    • 3
      Shares