Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    ওআইসির বিশেষ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ || যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন না ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস || ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপনির্বাচন নিয়ে আইনি জটিলতা নেই:ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ || আমনের নতুন চাল উঠলেও বাজারে দাম কমছে না || চাকরি জীবনের শেষ ২ বছর ওএসডি ছিলেন নিখোঁজ কূটনীতিক মারুফ  জামান || ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যই সরকার গুম খুনের রাজনীতি করছে: মির্জা ফখরুল || গুম হওয়া ২৭ ব্যক্তির পরিবারের সদস্যরা সমবেত হয়ে তাদের স্বজনদের ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন || আবার বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক হলেন সাকিব আল হাসান || কুড়িগ্রামে মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে মানহানি ও রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা || গাজীপুর মহানগর এবং গাজীপুর জেলা  শাখা  মাহিলা দলের কমিটি গঠিত ||

    ঝালকাঠিতে পুলিশ কর্মকর্তার ছেলের রহস্য জনক মৃত্যু

    August 12, 2017

    আজমীর হোসেন তালুকদার, ঝালকাঠি:: ঝালকাঠি সদর থানার এসআই গৌতম কুমার ঘোষের কিশোর পুত্র চয়ন কুমার ঘোষ (১৫) রহস্য জনক ভাবে নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের ৩ নং শ্মশান ঘাট এলাকায় নিজ বাসার বেলকুনিতে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকা তার মরদেহ পুলিশ উদ্ধার করেছে ।
    নিহত চয়ন কুমার ঘোষ ঝালকাঠি সদর থানার এসআই গৌতম কুমার ঘোষের একমাত্র ছেলে। সে ঝালকাঠি বালক সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়েল দশম শ্রেণির ছাত্র।
    স্থানীয়রা জানায়, চয়ন কুমার ঘোষ প্রাইভেট পড়ে সকাল ১১টার দিকে বাসায় ফিরে আসে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঘরের বেলকুনির গ্রিলের সঙ্গে গলায় গামছা পেঁচানো অবস্থায় তাকে দেখতে পান পরিবারর লোকজন। তাকে উদ্ধার করে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
    কিভাবে বা কি কারনে সে আত্মহত্যা করেছে সেই সম্পর্কে তার অভিভাবক ও পরিবারের সদস্যরা নিশ্চিত কিছু বলতে না পারলেও প্রাথমিক ভাবে চয়ন আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করছে তার পরিবার। চয়কে গত বুধবার একটি ল্যাাপটপ কিনে দেন বলে চয়নের বাবা এসআই গৌতম কুমার ঘোষ জানান ।
    ঝালকাঠি থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম জানান, তার মৃত্যুর সঠিক কারণ এখোন পর্যন্ত জানা যায়নি। তবে ময়না তদন্ত করে রিপোর্ট পাওয়া গেলে সঠিক কারন জানা যাবে।
    এদিকে, চয়নের মৃত্যুর খবর শুনে সদর হাসপাতালে ছুটে যান তার শিক্ষক ও সহপাঠীরা। তারা চয়নের মৃতদেহ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

     

    Print Friendly, PDF & Email