Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    শিক্ষা প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্রে ঘাঁটি গেড়েছিলেন তারা || ২১তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি) || নির্বাচনকালীন সরকার যেটি হবে সেটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের উদ্দেশ্যেই হবে:আমির খসরু মাহমুদ || নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন না দিলে জনগণ রাস্তায় নেমে ভোটাধিকার আদায় করবে || দুপুর বেলাও বিএনপি মনে করছে রাত শেষ হয়নি: ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী || সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশী সহ নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ৯ বিদেশী শ্রমিক || সিরিয়ার আফরিনে কুর্দিবিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখেছে তুর্কি সামরিক বাহিনী || ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা || ভিডিও >> সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল’কে ন্যাংটো করে দিলেন ‘উৎসাহী জনতা’ || অপরাধের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে:শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ||

    নৌকা-সাম্পান নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের বন্যার্তদের ত্রাণ দিতে দেখা যায়নি: আবদুল্লাহ আল নোমান

    August 19, 2017

    ‘সরকারের মন্ত্রীরা ত্রাণ দিতে গিয়ে রুই মাছের মাথা খায়

    pnbd24:-সরকার বানভাসিদের জন্য এগিয়ে আসছে না দাবি করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, ‘সরকারের মন্ত্রীরা ত্রাণ দিতে গিয়ে রুই মাছের মাথা খায়। তারা ত্রাণ দিতে পারেনি।’
    তিনি বলেন, ‘নৌকা-সাম্পান নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের বন্যার্তদের ত্রাণ দিতে দেখা যায়নি। তারা তা বলতেও পারবে না।’

    শনিবার বিকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন নোমান। এর আগে বিএনপির ‘কেন্দ্রীয় ত্রাণ ও পুনর্বাসন কমিটি’র পক্ষ থেকে বন্যা কবলিতদের জন্য দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করতে বৈঠক করেন তিনি।
    ত্রাণ কমিটির প্রধান সমন্বয়ক নোমান বলেন, ‘সরকারি হিসেব মতে বর্তমানে দেশে ২ লাখ ১০ হাজার মেট্রিকটন খাদ্য মজুদ আছে। অথচ স্বাভাবিকভাবে দেশে ১০ লক্ষ খাদ্যশস্য মজুদ থাকার কথা। সরকার বলছে- ১৫ লক্ষ মেট্রিক টন খাদ্যশস্য আমদানি করা হবে। কিন্তু এই পরিমাণ খাদ্যশস্য আমদানি করা সহজ করা নয়। অনেক সময়ে ব্যাপার।’
    তিনি বলেন, ‘দেশে এমনিতেই চালের সংকট রয়েছে। এর মধ্যে বন্যা পরিস্থিতির কারণে এই সংকট আরও প্রকট আকার ধারণ করতে পারে।’
    ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘রাজনৈতিক বক্তব্য বাদ দিয়ে সর্বদলীয়ভাবে আলোচনা করে বন্যাসহ সার্বিক সংকট নিরসনের চেষ্টা করতে হবে। সংকট দূরীকরণে বিরোধী দলে থেকে বিএনপির পক্ষে আর্থিকভাবে সম্পূর্ণভাবে সহায়তা করা সম্ভব নয়। তারপরও যতদিন পর্যন্ত বন্যা থাকবে ততদিন পর্যন্ত সীমিত সাধ্যের মধ্যে পাশে দাঁড়াবে বিএনপি।’
    এজন্য বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়াতে দেশের বিত্তবান ও সামর্থবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।
    বিএনপির ত্রাণ বিতরণে শাসকদল বাধা দিচ্ছে এমন অভিযোগ করে নোমান বলেন, ‘যেখানে আমরা ত্রাণ দিতে যাচ্ছি, সেখানে বিএনপির নেতাকর্মীরা নিগৃহীত ও নির্যাতিত হচ্ছে।’
    তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিনাজপুর সফরকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে সেখানে বিএনপির ত্রাণ কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। দিনাজপুর, রংপুর, নওগাঁয় ত্রাণ তৎপরতা বন্ধ হয়েছে। মানুষ যখন অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছে সেখানে ত্রাণ তৎপরতা বন্ধ করে দেওয়ায় আমরা উদ্বেগ ও ঘৃণা জানাচ্ছি।’
    বন্যা দুর্গতদের সহায়তায় বিএনপির কেন্দ্রীয় এই কমিটি দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বন্যার শেষ হওয়ার পরবর্তী সময়েও পরিকল্পনা নিয়ে ভুক্তভোগীদের পাশে দাঁড়িয়ে সার্বিক সহযোগিতা করবে বিএনপি।’
    এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, বিলকিস জাহান শিরিন, ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াসিন (কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটির সদস্য সচিব), স্বেচ্ছাসেবা বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, শহিদুল ইসলাম বাবুল, আবদুল আউয়াল খান প্রমুখ।

    Print Friendly, PDF & Email