Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    রাজনেতিক হস্তক্ষেপ হলে ২০১৮’র বিশ্বকাপে নিষিদ্ধ করা হবে স্পেনকে:ফিফা || লাখো মানুষের শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হতে পুরোপুরি প্রস্তুত জাতীয় স্মৃতিসৌধ || রাজধানীসহ সারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচি ১৮ ডিসেম্বর || আগামী বিজয় দিবস সরকারিভাবে বিএনপিই পালন করবে :বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা বাণীতে আহম্মেদ আলী মুকিব || ১৬ ডিসেম্বর আমদের গর্বিত এবং মহিমান্বিত বিজয় দিবস: বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া || ১৯৭১ সালের এদিনে আমরা প্রিয় মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করতে সক্ষম হই:বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম || চশমা হিলের পারিবারিক কবরস্থানে বাবার কবরের পাশেই শায়িত হলেন সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী || বুদ্ধিজীবী হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত অনেকের বিচার হয়েছে, অনেকে পালিয়ে আছে: ওবায়দুল কাদের || রাজধানীর মিরপুর বু‌দ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে জা‌তির শ্রেষ্ঠ সন্তানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া।  || শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ ||

    চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া আসনে চলছে প্রধান দুই দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী একাধিক নেতার দৌড়ঝাঁপ

    December 5, 2017

    pnbd24:-একাদশ সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া আসনে চলছে প্রধান দুই দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী একাধিক নেতার দৌড়ঝাঁপ। অপরদিকে সুযোগ খুঁজছে জাতীয় পার্টি। যদিও বর্তমানে এ আসনের সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের সামশুল হক চৌধুরী। এখনো পর্যন্ত আওয়ামী লীগে তিনিই অপ্রতিদ্বন্দ্বী। তবুও এ আসন থেকে মনোনয়নের জন্য লড়ছেন চট্টগ্রাম  দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সমপাদক মোহাম্মদ নাছির। মনোনয়ন দৌড়ে আছেন আওয়ামী লীগ নেতা বদিউল আলমও।

    একইভাবে বিএনপি’র মনোনয়ন পাওয়ার লড়াইয়ে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সহসভাপতি এনামুল হক আলোচনায় থাকলেও সম্প্রতি আলোচনায় উঠে এসেছেন দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি গাজী শাহজাহান জুয়েলও।
    অবশ্য চলতি বছরের শুরুর দিকে দলীয় কোন্দলের কারণে গাজী শাহজাহন জুয়েলকে দলীয় পদবি থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছিল। সম্প্রতি অব্যাহতির আদেশ প্রত্যাহারের খবরে তার অনুসারী নেতাকর্মীরা এখন বেশ চাঙ্গা। ফলে মনোয়ন লাভের ক্ষেত্রে দুই প্রার্থীর লড়াই তীব্র হয়ে উঠেছে। এছাড়া দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীর দৌড়ে রয়েছেন তরুণ নেতা গাজী মো. সিরাজ উল্লাহও।
    তবে তাদের প্রত্যেকের লক্ষ্য একটাই বিএনপি’র হারানো এই আসনটি পুনরুদ্ধার। আসন পুনরুদ্ধারে নিজের অবস্থান ও আসন হারানোর জন্য দায়ী নেতাদের দিকে আঙ্গুল তুলছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। এমনকি আসন পুনরুদ্ধারে নানা পরিকল্পনার কথাও তারা তুলে ধরেছেন।
    সবাই একটি কথাই বলছেন, এ আসনটি মূলত বিএনপি’র। কিন্তু মনোনয়ন ভুলের কারণে হাতছাড়া হয়ে গেছে এ আসনটি। এবার যেন তার পুনরাবৃত্তি না ঘটে।
    বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান, ২০০৮ সালে পটিয়ার ১৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত চট্টগ্রাম-১২ আসনে প্রথম জয় পায় আওয়ামী লীগ। এ সময় দুইবারের সংসদ সদস্য বিএনপি’র গাজী শাহজাহান জুয়েলকে হারিয়ে এ আসনে এমপি হন সামশুল হক। ২০১৪ সালেও তিনি সংসদ সদস্য হন।
    এর আগে ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের শক্তিশালী প্রার্থী প্রয়াত এসএম ইউসুফকে হারিয়ে সংসদ সদস্য হন বিএনপি’র শাহনেওয়াজ চৌধুরী মন্টু। ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে আওয়ামী লীগের মোছলেম উদ্দিন আহমেদকে হারিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন গাজী শাহজাহান জুয়েল।
    দ্বিতীয় মেয়াদে নানা কারণে তার জনপ্রিয়তায় ধস নামে। ২০০৮ সালে তিনি বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন আওয়ামী লীগের সামশুল হক চৌধুরীর কাছে।
    গাজী শাহজাহান জুয়েল এ প্রসঙ্গে বলেন, পটিয়ায় যা উন্নয়ন হয়েছে সব বিএনপি’র আমলেই। পটিয়া-বৈলতলী-আনোয়ারা সড়ক, পটিয়া-কেলিশহর-রতনপুর সড়ক, পটিয়া-বোয়ালখালী সড়ক, পাঁচুরিয়া-ধলঘাট সড়ক, মোজাফফরবাদ সড়ক নির্মাণ হয়েছে আমার আমলেই। পটিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সও আমার আমলেই। আমার উন্নয়নের কথা পটিয়ার মানুষ ভুলেনি, কখনো ভুলবেও না। এবারও দল আমাকে মনোনয়ন দেবে। আর পটিয়ার জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে।
    চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি এনামুল হক এনামও একাদশ সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী। ২০০৮ সালে মনোনয়ন না চাইলেও দলে সক্রিয় ছিলেন তিনি। নির্বাচনে হেরে যাওয়ার পর শাহজাহান জুয়েল নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। এছাড়া দলীয় কোন্দলের কারণে চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সভাপতি থেকে শাহজাহান জুয়েলকে অব্যাহতি দেয় দলীয় চেয়ারপারসন। এ সময় সংগঠনের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক ছিল না। দলের এ দুর্দিনে মাঠে থেকে সংগঠনকে চাঙ্গা রেখেছেন এনামুল হক। সে হিসেবে এবার দলীয় মনোনয়ন লাভের অধিকার এনামুল হকের বলে মনে করছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা।
    এ ব্যাপারে এনামুল হক এনাম বলেন, প্রহসনের নির্বাচন ঠেকানোর আন্দোলন করতে গিয়ে পুলিশের গুলি খেয়েছি। জেল-জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন সহ্য করেছি। বিষয়টি দলের শীর্ষ নেতারা জানেন। ম্যাডামেরও আস্থাভাজন হয়েছি। পটিয়ার সাধারণ মানুষ আমার সঙ্গে আছেন। হারানো আসনটি পুনরুদ্ধার করতে চাই। মনোনয়ন পেলে দলের লক্ষ্য পূরণ হবে বলে আশা করছি।
    মনোনয়ন প্রত্যাশী আরেক নেতা গাজী মো. সিরাজ। তিনি চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্ব পালন করলেও সম্প্রতি মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক পদে যুক্ত হয়েছেন। এতে উজ্জীবিত এ নেতা নিজ জন্মস্থান পটিয়া আসন থেকে মনোনয়ন পেতে চেষ্টা চালাচ্ছেন।
    তিনি বলেন, দলে প্রবীণ নেতারা কোনো না কোনো কারণে বিতর্কিত। সাধারণ মানুষ এদের ভালো চোখে দেখে না। তাই ফ্রেশ মাইন্ডের নেতা হিসেবে মনোনয়ন পেলে আমি পটিয়া আসন থেকে অবশ্যই জয়লাভ করবো।
    এদিকে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা বর্তমান সংসদ সদস্য সামশুল হককে অপ্রতিদ্বন্দ্বী মনে করলেও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দৌড়ে রয়েছেন বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সমপাদক মোহাম্মদ নাছির।
    মনোনয়ন নিয়ে সামশুল হক বলেন, গত ৯ বছরে পটিয়ায় হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে। ব্যাপক অবকাঠামো উন্নয়ন ছাড়াও প্রায় ৩০০ কোটি টাকার প্রকল্প চলছে। পটিয়া কালার পোল সেতু, কৈ-গ্রাম সেতু ও রাজঘাটা সেতুর কাজ সরকারের চলতি মেয়াদেই শেষ হবে।
    এছাড়া সাড়ে ৭ কিলোমিটার দীর্ঘ পটিয়া বাইপাস সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ হলে শহরে যানজট কমবে। কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে উপজেলার হাইদগাঁওয়ে ৫০ একর জায়গার ওপর ১০০ কোটি টাকায় নির্মিত হচ্ছে হর্টিকালচার। পাশেই হচ্ছে শেখ রাসেল স্টেডিয়াম।
    তিনি বলেন, ৯১ সাল থেকে তিন মেয়াদে এ আসনটি ছিল বিএনপির। কিন্তু তারা কোন উন্নয়ন করেনি। এই তিন মেয়াদসহ অতীতের সব সরকার মিলে পটিয়ায় যে কাজ করেছে, গত ৮ বছরে তার চেয়ে শতগুণ বেশি কাজ হয়েছে।
    তিনি বলেন, দুর্নীতিকে আমি প্রশ্রয় দিইনি। দল অবশ্যই ভোটার ও জনপ্রিয়তা যাচাই করেই আগামীতে প্রার্থী বাছাই করবে। জাতির পিতার কন্যা ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে ২০০৮ সালে আমাকে মনোনয়ন দিয়েছিলেন। আমিই প্রথম আসনটি ছিনিয়ে আনি।
    আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাছির বলেন, পটিয়ায় উন্নয়ন হচ্ছে সত্য, তবে দলের নেতাকর্মীরা নিপীড়িত-নির্যাতিত, তাদের মূল্যায়ন হচ্ছে না। তৃণমূলে যারা দলকে টিকিয়ে রাখছেন তাদের মূল্যায়ন না হওয়াটা কষ্টের। তাছাড়া পরিবর্তনের একটি ধারা তৈরি হয়েছে। এ আসন থেকে আমি আওয়ামী লীগের একজন প্রার্থী। মনোনয়ন পেলে অবশ্যই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পারব।
    অন্যদিকে জাতীয় পার্টি এ আসনটিকে প্রেস্টিজ হিসেবে দেখছে। ১৯৮৮ সালে এ আসন থেকে সংসদ সদস্য হন জাতীয় পার্টির শিল্পবিষয়ক উপদেষ্টা সিরাজুল ইসলাম। পটিয়া পৌরসভার সাবেক মেয়র ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি সামশুল আলম মাস্টার এর আগে দুইবার নির্বাচন করেছিলেন এ আসনে।
    দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সমপাদক নুরুচ্ছপা সরকারও জাতীয় পার্টির জন্মলগ্ন থেকে কাজ করছেন পটিয়ায়। তারা উভয়ই মনে করেন, পটিয়ায় জাতীয় পার্টির জনসমর্থন রয়েছে। জোটগত নির্বাচন হলেও এ আসনটি দাবি করবে জাতীয় পার্টি। জেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি এনএম জসিম উদ্দিনও মনোনয়ন চাইবেন।
    মনোনয়ন প্রত্যাশী চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি সামশুল আলম মাস্টার বলেন, ১৯৯৬ সালে নির্বাচন করে ৪৫ হাজার ভোট পেয়েছিলাম। এবারও মনোনয়ন চাইব। পার্টি চেয়ারম্যানের কাছে দুইজনের নাম পাঠানো হয়েছে। একজন সাবেক সংসদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, আরেকজন আমি।
    চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা জাতীয় পর্টির সাধারণ সমপাদক নুরুচ্ছপা সরকার বলেন, মনোনয়ন দেয়ার ক্ষমতা পার্টি চেয়ারম্যানের। জন্মলগ্ন থেকে দলে আছি, কোন সময় নির্বাচন করিনি। সামশুল আলম মাস্টার দুইবার নির্বাচন করেছেন। একবারও জয় পাননি। ২০১৪ সালে পার্টি চেয়ারম্যানের নির্দেশ থাকার পরও মনোনয়ন প্রত্যাহার করেননি। আওয়ামী লীগের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। ক্লিনইমেজের প্রার্থী হিসেবে এ আসনে জাতীয় পার্টি আমাকেই মনোনয়ন দেবেন।

    Print Friendly, PDF & Email