Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় জাতি স্মরণ করেছে মহান ভাষা শহীদদের || জিয়া পরিবারকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রকাশে তৎপর এক শ্রেণীর হলুদ পত্রিকা ও সাংবাদিকেরা : রুহুল কবির রিজভী || চাঁদপুরে বিএনপির দুই শীর্ষ নেতাসহ আটক ৭ || রাজনৈতিক অধিকার অর্জনের মধ্যদিয়েই আমরা অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন করতে পারি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা || একটি গণতন্ত্রহীন দেশের প্রধানমন্ত্রীর ভাষা, নির্দয় একনায়কতন্ত্রের ভাষা:রুহুল কবির রিজভী || খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা ও রায় সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত:সৌদিআরব বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকিব || অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন : লুই মার্সেল || সাহস থাকলে নিরপেক্ষ-নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন:হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে নজরুল ইসলাম খান || বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর নিন্দা ও প্রতিবাদ || বিভিন্ন অসঙ্গতি তুলে ধরে খালেদা জিয়ার রায়ের বিরুদ্ধে ২৫ যুক্তিতে আপিল করেছেন আইনজীবীরা ||

    অমর একুশে গ্রন্থমেলা: কাগজের মেলায় ভিন্ন আকর্ষণ ই-বুক

    February 5, 2018

    pnbd24:-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্রী মারজান আক্তার। অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এসেছেন নতুন বই কিনতে। প্রথমে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে প্রবেশ করলেন। এদিক সেদিক  ঘোরাঘুরির ফাঁকে নজর পড়ে বর্ধমান হাউজের সামনে অবস্থিত বেঙ্গল ই-বই এর স্টলে। ভেতরে ঢুকেই ই-বই সম্পর্কে জানতে চান। ই-বই সম্পর্কে আগে জানলেও এর সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে কমই জানা ছিল তার।

    তাই স্টলে থাকা ব্যান্ড প্রমোটরদের কাছে এ সম্পর্কে বিস্তারিত যেনে বেঙ্গল ই-বইয়ে নিজের অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করেন। একসঙ্গে অনেক বই অনলাইনে পেয়ে উচ্ছ্বসিত তিনি। শুধু মারজান আক্তার নয়, গ্রন্থমেলায় আসা দর্শনার্থীদের মধ্যে তরুণ পাঠকদের এভাবে ভিড় করতে দেখা গেছে ই-বুকের স্টলগুলোতে। এ যেন বিখ্যাত কল্পবিজ্ঞান লেখক আইজ্যাক আসিমভ-এর লেখাটিই সত্যভাবে ধরা দিয়েছে আজ। তিনি লিখেছিলেন- ‘আগামীতে কাগজের বই বলে কিছুই থাকবে না। প্রযুক্তির ছোঁয়ায় কাগজের বই হয়ে যাবে ডিজিটাল।’ তার কল্পনা অনুযায়ী কাগজের বই ই-বইতে রূপ পেয়েছে। মানুষের চিন্তার জগতকে নতুনভাবে ভাবাচ্ছে। বর্তমান সময়ে প্রযুক্তির অবাধ ব্যবহার মানুষকে নাকি অলস করে দিয়েছে! পড়ালেখা থেকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে তরুণদের। স্মার্ট ফোন, ট্যাব     পৃষ্ঠা ২ কলাম ৫

    ল্যাপটপ, কম্পিউটার এর সহজলভ্যতায় ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দৈনন্দিন জীবনের অনেক সময়ই নষ্ট করছে তারা। ‘বড় চিন্তার কারণ’- বই পড়ায় আগ্রহ হারিয়ে তরুণদের দিনের বেশির ভাগ সময় এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ডুবে থাকা। এসব চিন্তা যারা করছেন- তাদের জন্য হয়তো আজ ই-বুক স্বস্তির কারণ। ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহারের মাধ্যমে কিভাবে তরুণদের পড়ালেখায় আগ্রহী করা যায় সেটিই করে দেখাচ্ছে ই-বুক। আধুনিক প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় বিশ্বব্যাপী ই-বুকের ব্যবহার শুরু হয়েছে অনেক আগেই। কাগজে বই ছাপার ঝামেলা, খরচ ইত্যাদির কথা বিবেচনায় ই-বুকে ঝুঁকছেন তারা। গত তিন-চার বছরে বাংলাদেশেও এর চাহিদা বেড়েছে। প্রযুক্তি যতই সহজলভ্য হচ্ছে ততই কাগজের বই পাঠকের সংখ্যা কমছে। আধুনিক ডিভাইসের কল্যাণে যে কোনো সময় যে কোনো স্থানে বসেই বই পড়া যায় বিধায় এর প্রতি আগ্রহী হচ্ছে তরুণরা। লাইব্রেরির হাজারো বই থেকে পছন্দের বই খুঁজে বের করা যত কঠিন ই-বুকের অ্যাপস থেকে কয়েক ক্লিকে সেই বই বের করে পড়া যায় তত সহজে। এছাড়াও ই-বুক নিজের ব্যবহৃত ডিভাইসে অ্যাপস ডাউনলোড করেই পড়া যাচ্ছে। অথচ কাগুজে বইয়ের ক্ষেত্রে সেটি বহনসহ নানা ঝামেলা পোহাতে হয়। বর্তমানে বাংলাদেশের জনপ্রিয় লেখকদের বইসমূহ ই-বুক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোর অ্যাপসে পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়াও অ্যাপসগুলোতে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বইগুলো সাজানো রয়েছে। পাঠক নিজের পছন্দ অনুযায়ী কয়েক ক্লিকেই পছন্দের বই ডাউনলোড করতে পারেন।
    পাঠকদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে গত কয়েক বছরের ধারাবাহিকতায় এবারো অমর একুশে গ্রন্থমেলায় স্টল নিয়ে বসেছে বেশ কয়েকটি ই-বুক কেন্দ্রিক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান। মেলার বাংলা একাডেমি অংশে এসব প্রতিষ্ঠানের অবস্থান। এর মধ্যে রয়েছে- বইঘর, বেঙ্গল ই-বই, সেই বই ইত্যাদি। মেলায় আসা দর্শনার্থীরা এসব স্টলে ভিড় করছেন। ই-বুকের প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের নিজস্ব অ্যাপস সম্পর্কে ধারণা দেয়া, অ্যাপস ডাউনলোড, পাঠকদের রেজিস্ট্রেশন করা ও বই ডাউনলোডের নিয়ম দেখানোর কাজ করছে। পাঠকরাও জানছেন ই-বইয়ের সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে। কেউ কেউ ডাউনলোড করে নিচ্ছেন অ্যাপস। রেজিস্ট্রেশন করে মেলাতেই চোখ বুলাচ্ছেন প্রিয় লেখকের বইসমূহ। এসব অ্যাপসে গল্প, উপন্যাস, ছোট গল্প, কবিতা, রম্য রচনা, জীবনী, আত্মজীবনী, অনুবাদ, প্রবন্ধ, গবেষণাসহ সব ক্যাটাগরির বই খুঁজে পেতে পারেন পাঠক।
    জানতে চাইলে বইঘর এর রিপ্রেজেন্টার ইমানা আলম ইমু বলেন, তাদের অ্যাপসে ১ হাজারের অধিক বই পাওয়া যাচ্ছে। দুটি মোবাইল অপারেটরের মোট ৬০ হাজারের অধিক পাঠক রয়েছে তাদের। পাঠক চাইলে পছন্দ অনুযায়ী সেসব বই নির্ধারিত মূল্যের বিনিময়ে ডাউনলোড করে পড়তে পারেন। এছাড়াও বিনামূল্যে বিভিন্ন বই পড়ার সুযোগ রয়েছে অ্যাপসটির ব্যবহারকারীদের। তিনি জানান, তাদের অ্যাপসের বইগুলো সর্বনিম্ন ১০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২৫ টাকা মূল্যে কিনতে পারবে গ্রাহকরা। দুইটি মোবাইল অপারেটর ব্যবহারকারী গ্রাহকরাই তাদের বই পড়তে পারবে। ওই দু’টি অপারেটরের মাধ্যমেই টাকা পরিশোধ করতে হবে। এর মধ্যে একটি অপারেটরের গ্রাহকরা ২ দশমিক ৪৪ টাকা খরচায় রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে। আর অন্যটির গ্রাহকরা ১ দশমিক ২২ টাকা খরচায় রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে। এক অপারেটর ব্যবহারকারীরা দৈনিক ২টি ও অন্য অপারেটর ব্যবহারকারীরা ৫টি বই দৈনিক বিনামূল্যে পড়তে পারবে। সেই বইয়ের সূত্রে জানা গেছে, তাদের সংরক্ষণে রয়েছে ১ হাজারেরও বেশি বই। গ্রন্থমেলা উপলক্ষে ৫০ শতাংশ ছাড়ে গ্রাহকরা বই কিনতে পারছেন। এছাড়াও ক্লাসিক বইগুলো বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে। একজন ইউজার ডেবিট কার্ড, মাস্টারকার্ড, ক্রেডিট কার্ড, ভিসা কার্ড ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পেমেন্ট করে বই কিনতে ও পড়তে পারবে। ‘বেঙ্গল ই-বই’ এর ব্যান্ড প্রমোটর মিজানুর রহমান রিয়াদ বলেন, তাদের অ্যাপসে ব্যবহার করে ১ হাজারের অধিক বই পাঠক পেমেন্ট এর মাধ্যমে এবং ২৫০টি বই ফ্রিতে পড়তে পারবেন। একজন ইউজার ডেবিট কার্ড, মাস্টারকার্ড, ক্রেডিট কার্ড, ভিসা কার্ড ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পেমেন্ট করে বই কিনতে ও পড়তে পারবে। এ পর্যন্ত তাদের অ্যাপসটি ডাউনলোড করেছেন ৭ হাজারের অধিক গ্রাহক। আর ১০ হাজারের অধিক গ্রাহক অ্যাপসটি রেজিস্ট্রেশন করেছেন। গ্রন্থমেলায়ও ভালো সাড়া পড়েছে। গত চারদিনে ৫ শতাধিকের অধিক গ্রাহক রেজিস্ট্রেশন ও সাড়ে ৩শ’ গ্রাহক অ্যাপসটি ডাউনলোড করেছে।
    এদিকে সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমি থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গতকাল মেলা চলে বিকাল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। মেলায় নতুন বই এসেছে ১১৬টি।

    মেলা মঞ্চের আয়োজন:
    গতকাল বিকাল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় আ জ ম তকীয়ূল্লাহ: জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আলী ইমাম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন রতন সিদ্দিকী ও শান্তা মারিয়া। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ভাষাসংগ্রামী আহমদ রফিক। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী শামা রহমান, স্বর্ণময়ী মণ্ডল, আবদুর রশীদ, স্বপ্নীল সজীব। যন্ত্রাণুষঙ্গে ছিলেন রবীন্দ্রনাথ পাল (তবলা), শাহরাজ চৌধুরী তপন (গীটার), সুনীল কুমার সরকার (কী-বোর্ড)।

    আজকের অনুষ্ঠানসূচি:
    আজ মঙ্গলবার অমর একুশে গ্রন্থমেলার ৬ষ্ঠ দিন। মেলা চলবে বিকাল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। বিকাল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে অশ্বিনীকুমার দত্ত: জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন বদিউর রহমান। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন আসাদ চৌধুরী, সৈয়দ বদরুল আহ্‌সান, ড. জালাল আহমেদ এবং মো. মনিরুজ্জামান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. হারুন-অর-রশিদ। সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

    Print Friendly, PDF & Email