Recent Comments

    ব্রেকিং নিউজ

    বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় জাতি স্মরণ করেছে মহান ভাষা শহীদদের || জিয়া পরিবারকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রকাশে তৎপর এক শ্রেণীর হলুদ পত্রিকা ও সাংবাদিকেরা : রুহুল কবির রিজভী || চাঁদপুরে বিএনপির দুই শীর্ষ নেতাসহ আটক ৭ || রাজনৈতিক অধিকার অর্জনের মধ্যদিয়েই আমরা অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন করতে পারি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা || একটি গণতন্ত্রহীন দেশের প্রধানমন্ত্রীর ভাষা, নির্দয় একনায়কতন্ত্রের ভাষা:রুহুল কবির রিজভী || খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা ও রায় সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত:সৌদিআরব বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকিব || অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন : লুই মার্সেল || সাহস থাকলে নিরপেক্ষ-নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন:হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে নজরুল ইসলাম খান || বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর নিন্দা ও প্রতিবাদ || বিভিন্ন অসঙ্গতি তুলে ধরে খালেদা জিয়ার রায়ের বিরুদ্ধে ২৫ যুক্তিতে আপিল করেছেন আইনজীবীরা ||

    ভালোবাসা দিবসে এটিএন বাংলার বিশেষ আয়োজন

    February 13, 2018

    pnbd24:-বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে এটিএন বাংলায় আজ রয়েছে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা। সকাল ৭.৩০টায় প্রচার হবে ‘চায়ের চুমুকে’র বিশেষ পর্ব। উপস্থাপনা- মারিয়া শিমু, পরিচালনা- শম্পা মাহমুদ ও নবুয়াত রহমান। অনুষ্ঠানের অতিথি- মডেল ও অভিনেত্রী ইমি ও তার স্বামী মডেল আজমির। সকাল ৮.৩০টায় প্রচার হবে আজ সকালের গান এর বিশেষ পর্ব। ১০.৩০টায় প্রচার হবে পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি ‘নিঃশ্বাস আমার তুমি’, পরিচালনা- বদিউল আলম খোকন। সন্ধ্যা ৬.২৫টায় প্রচার হবে ইভা রহমানের একক সঙ্গীতানুষ্ঠান ‘ভালোবাসার উৎসব’। রাত ৮টায় প্রচার হবে ফাগুন অডিওভিশন নির্মিত ভালোবাসা দিবসের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘পাঁচফোড়ন’, পরিচালনা- সানজিদা হানিফ।

    এবারের পাঁচফোড়ন সাজানো হয়েছে টক শো’র আঙ্গিকে। এ আয়োজনে দুই বন্ধুর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মীর সাব্বির ও সাজু খাদেম। তাদের আলাপচারিতার ফাঁকে ফাঁকে থাকবে নাচ, গান, নাটক ও বিভিন্ন বিষয়ের ওপর প্রতিবেদন। এ অনুষ্ঠানে রয়েছে মোট তিনটি গান। গানগুলো গেয়েছেন সঙ্গীতশিল্পী সেলিম চৌধুরী, প্রতিক হাসান ও আনিকা এবং দূরবীন ব্যান্ডকে সঙ্গে নিয়ে সংগীতশিল্পী শহিদ। অনুষ্ঠানে রয়েছে অটোরিকশা চালকের যাত্রীসেবা এবং অসহায় ও গরীব রোগীদের ফ্রি সার্ভিস দেওয়া নিয়ে প্রতিবেদন। আরো থাকছে মানুষের মুখে বিভিন্ন পশু-পাখির ভালোবাসার ডাক সহ ভালোবাসার ওপর বিভিন্ন আঙ্গিকের নাট্যাংশ।

    রাত ৯টায় প্রচার হবে ভালোবাসা দিবসের বিশেষ নাটক ‘টুকরো প্রেমের টান’। রচনা- সেজান নূর, পরিচালনা- বি ইউ শুভ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেহজাবিন চৌধুরৗ, অপূর্ব, জনি, অরুনা বিশ্বাস প্রমুখ। সঙ্গীত শিল্পী হবার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাবার একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নাটকের কাহিনী আবর্তিত। রাত ১০.৪৫টায় প্রচার হবে বিশেষ টেলিফিল্ম ‘সায়েন্সের মেয়ে আর্টসের ছেলে’, রচনা- সৈয়দ জিয়া উদ্দিন, পরিচালনা- হাবিব শাকিল। একজন শিক্ষার্থীকে পড়ানোকে কেন্দ্র করে দুইজন হাউজ টিউটরের মধ্যে গড়ে ওঠা প্রেমের কাহিনী নিয়ে আবর্তিত হয়েছে টেলিফিল্ম ‘সাইন্সের মেয়ে, আর্টসের ছেলে’। টেলিফিল্মটিতে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো, মেহজাবিন চৌধুরী, জনি সহ আরো অনেকে।

    ভালবাসা দিবসের বিশেষ নাটক ‘টুকরো প্রেমের টান’
    বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে এটিএন বাংলায় ১৪ই ফেব্র“য়ারি রাত ৯টায় প্রচার হবে সেজান নূর এর রচনা ও বি ইউ শুভর পরিচালনায় বিশেষ নাটক ‘টুকরো প্রেমের টান’। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেহজাবিন চৌধুরৗ, অপূর্ব, জনি অরুনা বিশ্বাস প্রমুখ।
    মৌমিতার স্বপ্ন বড় সঙ্গীতশিল্পী হবে। সারাদিন আড্ডাবাজি, মজামাস্তি আর সুযোগ পেলে বন্ধু রাহাতকে গান শোনানোই তার কাজ। কিন্তুু মৌমিতা বিখ্যাত হোক এটা চায়না রাহাত। কেননা রাহাত মৌমিতাকে ভীষন ভালোবাসে। রাহাত মনে করে সেলিব্রেটি হয়ে গেলে সে রাহাতকে সে ভুলে যেতে পারে। এরই মাঝে সময়ের জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী ইরফানের সঙ্গে পরিচয় ঘটে রাহাতের। একদিন রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়ে রাহাতের মানিব্যাগে ইরফানের ভিজিটিং কার্ড পায় মৌমিতা। এরপর ইরফানের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্য রাহাতকে চাপ দিতে থাকে সে। বাধ্য হয়ে মৌমিতাকে নিয়ে সে ইরফানের কাছে যায়। ইরফান মৌমিতার গান শুনে মুগ্ধ হয় এবং এরপর থেকে প্রতিনিয়ত ইরফানের স্টুডিওতে সময় দিতে থাকে মৌমিতা। বিষয়টি রাহাতের ভালো লাগেনা এবং সে দুরে সরে যেতে থাকে। এরই মাঝে রাহাতের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিলনা। এমন পরিস্থিতিতে হঠাৎ রাহাত কে নিয়ে মৌমিতার সামনে হাজির হয় ইরফান। মৌমিতা জানতে চায় রাহাত কেন এমন করছে? রাহাত চিৎকার করে বলে ফেলে যে সে মৌমিতাকে ভালোবাসে। মৌমিতা বুঝতে পারে সে নিজেও রাহাতকে ভালোবেসে ফেলেছে। দুজনের এমন ভালোবাসার মিলনে ইরফানের চোখের কোনে অশ্রবিন্দু জমে উঠে।

    ভালবাসা দিবসের বিশেষ টেলিফিল্ম ‘সায়েন্সের মেয়ে, আর্টসের ছেলে’
    বিশ্ব ভালবাসা দিবস উপলক্ষে এটিএন বাংলায় আজ (১৪ই ফেব্র“য়ারি) রাত ১০.৪৫টায় প্রচার হবে বিশেষ টেলিফিল্ম ‘সায়েন্সের মেয়ে আর্টসের ছেলে’। সৈয়দ জিয়া উদ্দিন এর রচনায় টেলিফিল্মটি পরিচালনা করেছেন হাবিব শাকিল। টেলিফিল্মটিতে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো, মেহজাবিন চৌধুরী, জনি সহ আরো অনেকে। টেলিফিল্মটি মূলত সাইন্সের ছাত্রী এবং আর্টসের ছাত্রের দুষ্টু মিষ্টি ভালোবাসার গল্প নিয়ে তৈরি। তবে টেলিফিল্মটিতে লেখাপড়া নিয়ে তরুণ-তরুণী ও তাদের বাবা মায়ের ভাবনা, ক্যারিয়ার ভাবনা এবং ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তাও ইত্যাদিও তুলে ধরা হয়েছে।
    সমসাময়িক এই গল্পের ঘটনাস্থান ঢাকা হলেও পুরো দেশের তরুণ-তরুণী এবং অভিভাবকরা গল্পের সাথে সম্পৃক্ত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র অংশু আর বুয়েটের ছাত্রী লামিয়া দুজনি রুশনার প্রাইভেট টিউটর। রুশনা ইন্টারমিডিয়াটের ছাত্রী। ফাকিবাজ আর আদুরে। অংশু ইংরেজি আর লামিয়া তাকে সায়েন্সের সাব্জেক্ট পড়ায়। প্রতিদিন লামিয়ার পড়ানো শেষ হলে অংশু পড়াতে আসে। দু একদিন এই দুজনের দেখা আর টুকটাক কথা হয়েছে। লামিয়া একদম সাজগোজ পছন্দ করেনা। সে বেশ স্ট্রিক্ট, ক্যারিয়ারিস্ট আর খুব কম কথা বলে। আর্টসের ছাত্র অংশুর মনে হয় যে লামিয়া তাকে খুব একটা পাত্তা দেয়না। আবার লামিয়ার বেতনও বেশী। এগুলো অংশুকে হিট করে। অংশু নিজেও ইন্টারমিডিয়টে পর্যন্ত সায়েন্সেরই ভাল ছাত্র ছিল। কিন্তু ইংরেজী সাহিত্যে পড়ার ইচ্ছা থেকেই ইংরেজী ডিপার্টমেন্টে পড়ছে। লামিয়ার চেয়ে অংশুর সাথেই বেশি ফ্রি ছাত্রী রুশনা। একদিন একটা বিষয় লামিয়া তাকে ভাল বোঝাতে পারেনি। বিষয়টি রুশনা লামিয়াকে না বলে ইংরেজি টিচার অংশুকে জানায় এবং অংশু সাইন্সের বিষয়টি তাকে সহজেই বুঝিয়ে দেয়। বিষয়টি পরে লামিয়া জানতে পারে এবং এ নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব তৈরি হয়। লামিয়ার কুটলামিতে একদিন রুশনার বাবা-মা অংশুকে হাউজ টিউটর হতে বিদায় করে দেয়। একমাত্র টিউশন হারিয়ে অংশু বেশ অর্থকষ্টে পড়ে। এদিকে ছাত্রী রুশনার পছন্দ একজন আর্মি অফিসার বিয়ে করে জীবনটা কাটিয়ে দেবে। সে তার লেখাপড়ার প্রতি আস্তে আস্তে মনযোগ কমিয়ে দেয় এবং রেজাল্ট খারাপ করতে থাকে। কিন্তুু টিচার লামিয়ার ইচ্ছা ছাত্রী নিজেই যোগ্যতা অর্জন করে ভালো ক্যারিয়ার গড়বে। নিজের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে একদিন লামিয়া অংশুকে ফোন করে অনুরোধ করে যে সে যেন রুশনাকে এসে একটু বোঝায় যাতে সে বিয়ের প্রতি আগ্রহী না হয়ে লেখাপড়ায় মনযোগী হয়ে ক্যারিয়ার গড়তে সচেষ্ট হয়। অংশু আসে এবং রুশনাকে বোঝায়। রুশনা অংশুর কথা মানে এবং লেখাপড়ায় মনযোগী হয়ে একদিন ডিফেন্সের পরীক্ষা দেয় এবং প্রাথমিক স্টেজে পাশও করে। এতে করে লামিয়া খুব খুশি হয় অংশুর প্রতি। অংশুকে সে একটু একটু মিস করতে থাকে। এদিকে লামিয়াকে অংশু পছন্দ করলেও সে জানতো যে লামিয়ার সাথে বুয়েটেরই এক বড় ভাইয়ের পারিবারিকভাবে বিয়ে ঠিক করে রাখা হয়েছে। কিন্তু মনের কথা জানাতে একদিন অংশু সাহস করে চলে যায় লামিয়ার বাড়ি। অংশু তাকে সরাসরি নিজের মনের কথা বলে। অংশুর এরকম অকপট কথা খুব পছন্দ হয় লামিয়ার এভাবেই এগিয়ে যায় টেলিফিল্মের গল্প…।

     

    Print Friendly, PDF & Email